মিয়ানমারের বীমাখাতচূড়ান্ত অনুমোদন পেলো বিদেশি ৫ বীমা কোম্পানি


Published: 2019-12-05 10:49:02 BdST

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: প্রথমবারের মতো সম্পূর্ণ বিদেশি মালিকানাধীন ৫টি লাইফ বীমা কোম্পানিকে ব্যবসা করার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মিয়ানমার। একইসঙ্গে দেশি-বিদেশি যৌথ উদ্যোগের ৬টি বীমা কোম্পানিকে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। গত ২৮ নভেম্বর দেশটির ফিনান্সিয়াল রেগুলেটরি ডিপার্টমেন্ট এসব লাইসেন্স প্রদান করে।

চূড়ান্ত অনুমোদন প্রাপ্ত বিদেশি মালিকানাধীন লাইফ বীমা কোম্পানিগুলো হলো- মার্কিন যুক্তরাজ্যের প্রুডেন্সিয়াল, জাপানের ডাই-ইচি-লাইফ, হংকংয়ের এআইএ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চাব এবং কানাডার মেনুলাইফ। দু’বছরের বেশি সময় অপেক্ষার পর গত ৫ এপ্রিল থেকে কোম্পানিগুলো সাময়িক অনুমোদন নিয়ে দেশটিতে লাইফ বীমা ব্যবসা করছিল।

দেশি-বিদেশি যৌথ উদ্যোগের ৩টি নন-লাইফ বীমা কোম্পানির উদ্যোক্তারা হলো- এওয়াইএ মিয়ানমার জেনারেল ইন্স্যুরেন্স ও সম্পো জাপান নিপ্পনকোয়া ইন্স্যুরেন্স, গ্র্যান্ড গার্ডিয়ান জেনারেল ইন্স্যুরেন্স ও টোকিও মেরিন এন্ড নিচিডো ফায়ার ইন্স্যুরেন্স এবং আইকেবিজেড ইন্স্যুরেন্স ও মিটসুই সুমিতমো ইন্স্যুরেন্স।

এ ছাড়াও দেশি-বিদেশি যৌথ উদ্যোগের ৩টি লাইফ বীমা কোম্পানির উদ্যোক্তারা হলো- ক্যাপিটাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও টাইও লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সিটিজেন বিজনেস ইন্স্যুরেন্স ও থাই লাইফ ইন্স্যুরেন্স এবং গ্র্যান্ড গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও নিপ্পন লাইফ ইন্স্যুরেন্স।

বিদেশী বিনিয়োগকারীদের লাইসেন্স দেয়ার বিষয়টি মিয়ানমার সরকারের একটি প্রধান সংস্কার বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। মিয়ানমারের বীমা বাজারে বহু বছর ধরে একচেটিয়া ব্যবসা করছিল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান মিয়ানমা ইন্স্যুরেন্স। তবে ২০১৩ সালে স্থানীয় বেসরকারি উদ্যোক্তাদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। বর্তমানে দেশটিতে লাইসেন্সধারী ১১টি বীমা কোম্পানি চালু রয়েছে। (সূত্র: মিয়ানমার টাইমস)

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোস্তাফিজুর রহমান টুংকু সম্পাদকীয় কার্যালয়
৫৩ মডার্ন ম্যানসন, মতিঝিল সি/এ, লেভেল # ১১, স্যুট # ৬, ঢাকা-১০০০।
ফোন: ০২ ৯৫১৪৮৭২, ইমেইল: insurancenewsbd@gmail.com