কোম্পানির অর্থ সরানোসহ অবৈধ ৫ কর্মকাণ্ডে জড়িত মোহাম্মদী খানম

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেতন ভাতার নামে অবৈধভাবে ১১ লাখ টাকা নেয়া ও ভুয়া কর্মকর্তার নামে কোম্পানির ৪৫ লাখ টাকা সরানোসহ ৫ ধরনের অবৈধ ও আইন বিররোধী কর্মকাণ্ডে মোহাম্মদী খানমের জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে প্রাইম ইন্স্যুরেন্স।

মোহাম্মদী খানমকে ছাড়পত্র না দেয়ার বিষয়ে ব্যাখা দিতে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) লেখা এক চিঠিতে মোহাম্মদী খানমের এসব অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার চিত্র তুলে ধরা হয়। গত বছরের ৩ নভেম্বর আইডিআরএ’কে লেখা ওই চিঠিতে স্বাক্ষর করেন কোম্পানিটির মূখ্য নির্বাহী পদে চলতি দায়িত্বে থাকা সৈয়দ মনিরুল হক।

সূত্র মতে, দীর্ঘদিন থেকেই কোম্পানির একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার ব্যক্তিগত একাউন্টে কোম্পানির টাকা সরিয়ে নেয়ার মাধ্যমে অবৈধ আর্থিক সুবিধা গ্রহণ অবৈধভাবে বেতন ভাতা নেয়াসহ ১০ ধরণের আর্থিক অনিয়মের জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠে মোহাম্মদী খানমের বিরুদ্ধে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে কোম্পানিটির ৩১৭তম বোর্ড সভায় আলোচনা করা হয়। কোম্পানির বোর্ড অভিযোগ বিষয়ে নিরীক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্ত দিলে ২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর মেসার্স আহমেদ জাকের এ্যান্ড কোং চারটার্ড একাউন্টসকে বিশেষ নিরীক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়। নিরীক্ষায় উঠে আসে মোহাম্মদী খানম ৫ অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িত। 

চিঠিতে মোহাম্মদী খানমের ৫টি অবৈধ কর্মকাণ্ড সুষ্পষ্টভাবে তুলে ধরা হয়। তা হলো- ১) পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত ছাড়াই মোহাম্মদী খানমের একক সিদ্ধান্তে দেশের অভ্যন্তরে পুনর্বীমা না করে অতিরিক্ত অনুপাতে পুনর্বীমার টাকা বিদেশে প্রেরণ করে কোম্পানি ও সরকারি অর্থের ক্ষতি করা।

২) ভূয়া কর্মকর্তা নিয়োগ দেখিয়ে ৪৫ লাখ ৩১ হাজার টাকা সরানো। ৩) ২০১৫ সাল থেকে ২০১৮ সালে কোম্পানির ডিএমডি সৈয়দ মনিরুল হকের ব্যক্তিগত একাউন্টে ৯১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা সরানো। ৪) অতিরিক্ত কমিশন প্রদান এবং ৫) পুনর্বীমা সংক্রান্ত আইন অমান্য। 

উল্লেখ্য, পরিচালনা পর্ষদের চাপের মুখে ২০১৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের মূখ্য নির্বাহী পদ থেকে পদত্যাগ করেন মোহাম্মদী খানম।

এসব বিষয়ে বক্তব্য জানতে কোম্পানিটির বর্তমান মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিসি) সৈয়দ মনিরুল হকের সঙ্গে ইন্স্যুরেন্সনিউজবিডি’র পক্ষ থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। একাধিকবার তার মোবাইলে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরবর্তীতে বিষয় উল্লেখ করে তার মোবাইলে মেসেজ পাঠানো হলেও তিনি সাড়া দেননি।