নেগেটিভকে পজিটিভ বানাতে শিখতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক: নেগেটিভকে পজিটিভ বানাতে শিখতে হবে। নেগেটিভকে পজিটিভ বানাতে পারলে, অনেক বেশি লাভবান হওয়া যায়। কারণ ব্যর্থ না হলে সফলতার পথ খুঁজে পাওয়া যায় না। যারা ব্যর্থ হয়, সময়ের সাথে তারাই সফল হয়। এমনটাই বলেছেন জেনিথ ইসলামী লাইফের বর্ষ সমাপনী সম্মেলনের বক্তারা।

আজ শনিবার রাজধানীর কাকরাইলে আইডিইবি ভবনে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইয়ুথ গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান ও শুভানুধ্যায়ী রেজাকুল হায়দার। এতে সভাপতিত্ব করেন কোম্পানির মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম নুরুজ্জামান।

জেনিথ ইসলামী লাইফের উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান এটিএম এনায়েত উল্লাহ বলেন, শুধু প্রথম বর্ষ ব্যবসা বৃদ্ধি করে লাভ নেই। টিকে থাকতে হলে নবায়ন প্রিমিয়াম সংগ্রহ বাড়াতে হবে। প্রথম বর্ষ প্রিমিয়াম সংগ্রহে বেশি কমিশন পাওয়া যায় বলে নবায়ন সংগ্রহে গুরুত্ব কমানো যাবে না। প্রথম বর্ষ ও নবায়ন উভয় ধরণের প্রিমিয়াম বাড়াতে হবে। তাহলেই সফলতা আসবে।

তিনি আরো বলেন, নিয়ন্ত্রক সংস্থার পক্ষ থেকে আমাদেরকে আইপিওতে যেতে চাপ দেয়া হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবতা হলো ভালো ব্যবসা করতে না পারলে আইপিওতে যাওয়া সম্ভব নয়। তাই আমাদেরকে অবশ্যই ভালো ব্যবসা করতে হবে। আমাদের যার যার লক্ষ্যমাত্রা পরিপূর্ণ করতে হবে। ভালো ব্যবসা দিয়েই আমাদেরকে আইপিওতে যেতে হবে।

কোম্পানিটির ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল জলীল বলেন, শুধু বসে বসে ভাবলে আর দোয়া করলে হবে না। বড় হতে হলে ব্যবসা বুঝতে হবে। তিনি বলেন, মানুষ বিনিময় চায়। কারণ জীবনটা চলে লেনদেনে। তাই ব্যবসা বুঝতে হবে। ব্যবসা বুঝতে পারলে আপনারা সফল হবেন। তিনি বলেন, গল্পের সেই দুই ভাইয়ের মতো ব্যবসা করলে হবে না, যারা নিজেদের পাঁচ টাকার বিনিময়ে পরস্পরের সব রুটি কিনে খেয়ে ফেলে।

আবদুল জলীল আরো বলেন, নেগেটিভকে পজিটিভ বানাতে শিখতে হবে। নেগেটিভকে পজিটিভ বানাতে পারলে, অনেক বেশি লাভবান হওয়া যায়। কারণ ব্যর্থ না হলে সফলতার পথ খুঁজে পাওয়া যায় না। যারা ব্যর্থ হয়, সময়ের সাথে তারাই সফল হয়। তিনি বলেন, স্বচ্ছতার সাথে লেনদেন শিখতে হবে। সততা থাকতে হবে। সততার কারণেই আপনারা বেঁচে থাকবেন, আপনার প্রজন্ম বেঁচে থাকবে।