সোমবার , ৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ , ১৭ মে, ২০২১

ব্যক্তির আর্থিক পরিকল্পনায় জীবন বীমার ভূমিকা


Published: 2021-04-26 13:56:35 BdST

মোহাম্মদ হানিফ: জীবন ঝুঁকিতে পরিপূর্ণ, যা ক্ষতির সম্ভাবনা হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়। মানুষ সাধারণত সুরক্ষা খোঁজেন এবং অনিশ্চয়তাকে এড়িয়ে চলেন। মানুষ প্রতিকার বা প্রতিরোধ বা বিকল্প কিছুর দিকে ঝুঁকছে যা আর্থিক ক্ষতি হ্রাস করে এবং ঝুঁকির সাথে যুক্ত বোঝা থেকে মুক্তি দেয়। মৃত্যুর বিপদ অনিবার্য, এবং স্পষ্টতই এটি একটি অর্থনৈতিক ঝুঁকি যদি আগে ঘটে, যখন কোনও মানুষকে প্রচুর আর্থিক দায়িত্ব বহন করতে হয় এবং বেঁচে থাকার আর্থিক প্রয়োজগুলো পূরণ করতে পর্যাপ্ত সময় ও অর্থ ব্যয় করতে হয়। ফলে ব্যক্তির পক্ষে নিকট ভবিষ্যৎ, দূর ভবিষ্যৎ ও অদূর ভবিষ্যতের জন্য পর্যাপ্ত সঞ্চয় করার সুযোগ তৈরি হয় না কিংবা করা সম্ভব হয়ে উঠে না।

আর্থিক পরিকল্পনা জীবনের জন্য একটি উৎপাদক যা জীবনের অনিশ্চয়তার বিরুদ্ধে সুরক্ষার জন্য একটি বিচক্ষণ বিধান যা, কোনও ব্যক্তি এবং তার নির্ভরশীলদের আর্থিক সুরক্ষায় স্থায়ীভাবে প্রভাব ফেলতে পারে।

অর্থ ব্যক্তি জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। আমেরিকান জীবন বীমা বিক্রয়কর্মী ও ব্যবসায়ী বেন ফিল্ডম্যান বলেছেন 'জীবন বীমা আসলে অর্থ ব্যতীত কিছুই নয়। আপনার বেশি জীবন বীমা দরকার নেই, তবে আপনার আরও অর্থের দরকার আছে'। তিনি আরো বলেছেন 'প্রতিটি মানুষের এমন সমস্যা রয়েছে যা কেবলমাত্র জীবন বীমা সমাধান করতে পারে। যুবকের ক্ষেত্রে সমস্যাটি নগদ তৈরি করা; বয়স্ক লোকের জন্য এটি সংরক্ষণ করার জন্য'।

বীমার কার্যক্রমগুলি উপকারী, কারণ বীমার প্রিমিয়াম সম্পদের অর্থায়ন করে, ব্যক্তি, উৎপাদন ও বাণিজ্য এবং রাষ্ট্রকে ক্ষতির অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণ থেকে রক্ষা করে, ক্ষতি পুষিয়ে বিনিয়োগগুলোকে উৎসাহিত করে অর্থনৈতিক বৃদ্ধি সহজ করে দেয়। সামাজিক ও ব্যক্তি জীবনের আর্থিক সুরক্ষা ব্যবস্থা হিসাবে জীবন বীমার উপকারিতা অপরিসীম। অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোন থেকে, জীবন বীমা হলো আর্থিক ঝুঁকি হ্রাস করার জন্য একটি পরিকল্পনা। এভাবেও বলা যায়, বীমা ধারণাটি আর্থিক ক্ষতি থেকে সুরক্ষা অর্জনের উদ্দেশ্যে একটি স্টেপ-চেইন প্রক্রিয়া।

একটি মানবজীবন তখনই অর্থনৈতিক মূল্য গ্রহণ করে যদি অন্য কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠী তার অস্তিত্বের মাধ্যমে কোনও অর্থনৈতিক সুবিধা পাওয়ার প্রত্যাশা করে (হুবনার, ১৯৫০)। বাল্ডউইনের মতে জীবন বীমার প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করার জন্য একজন ব্যক্তি নিজেকে দুটি প্রশ্ন জিজ্ঞাস করতে হবে। প্রথমটি হল, 'আমার মৃত্যুর ঘটনা ঘটলে, কেউ কি অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন?' যদি প্রতিক্রিয়া হ্যাঁ হয়, তবে পরবর্তী প্রশ্নটি হল, 'আমি কি এর জন্য কোন ব্যবস্থা নিয়েছি?' উত্তর যদি না হয় তবে ব্যক্তি তার উপর অর্থনৈতিকভাবে নির্ভরশীল ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের বর্তমানে বা আসন্ন সময়ের জন্য আর্থিক ব্যবস্থ্য হিসেবে জীবন বীমা গ্রহণ করা উচিত।

ব্যক্তিগত আর্থিক পরিকল্পনা, আর্থিক সুরক্ষা, আর্থিক স্বাধীনতা, আর্থিক মুক্তি ইত্যাদি শব্দমালার সাথে শিক্ষিত শ্রেণী কিছুটা পরিচিত হলেও দেশের অধিকাংশ লোক এই শব্দমালার সাথে তেমন একটা পরিচিত নয়। ব্যক্তি তার আর্থিক স্বাধীনতার দিকে পরিচালিত করতে বেছে নেয় প্রচলিত বিভিন্ন আর্থিক মাধ্যম। জীবন বীমা হিসাবে পরিচিত একটি বিশেষ সরঞ্জাম রয়েছে যা দীর্ঘমেয়াদী আর্থিক পরিকল্পনার জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ একটি হাতিয়ার।

জীবন বীমা হল একমাত্র হাতিয়ার যা একটি পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তি উপার্জন ক্ষমতা হারিয়ে গেলে বা দুর্ঘটনার কারণে বা স্থায়ীভাবে অক্ষম হওয়ার কারণে বা একটি গুরুতর অসুস্থতায় আক্রান্ত হয়ে যদি চাকরি হারায়, সেক্ষেত্রে ওই পরিবারকে আর্থিক লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম করে তুলতে সহায়তা করে থাকে। গুরুতর অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য জীবন বীমা হাতিয়ার হিসাবে কাজ করে। জীবন বীমা দীর্ঘকালীন ও স্বল্পকালীন উভয় ধরণের ঝুঁকি কভার করে থাকে।

জীবন বীমাবৃত একজন ব্যক্তিকে যদি প্রশ্ন করা হয়, তার জীবন বীমা করার উদ্দেশ্য কি? তাহলে সাধারণত আমরা তিনটি উত্তরই বেশি পেয়ে থাকব- ১) সঞ্চয় ২) নিরাপত্তা ৩) বিনিয়োগ ও কর রেয়াত, তবে তৃতীয় উত্তরটির উত্তরধাতা অধিকাংশ ব্যক্তিই শিক্ষিত শ্রেণীর। ব্যক্তিগত আর্থিক পরিকল্পনা এবং জীবন বীমা সম্পর্কে সচেতনতা যথাযথভাবে সরবরাহ করা দরকার যাতে জনসাধারণ উপকৃত হওয়ার পাশাপাশি বীমা সংস্থা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও উপকৃত হতে পারে। যদিও ব্যক্তিগত আর্থিক পরিকল্পনা এবং জীবন সম্পর্কে ধারণগুলি অনেক পুরানো, বিষয় দুটি আধুনিক সময়ে আরো বেশি প্রাসঙ্গিক এবং গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যক্তিগত আর্থিক পরিকল্পনার মূল বিষয়গুলি স্কুল পর্যায়ে পাঠ্যক্রমের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা দরকার। যে ব্যক্তি তার ব্যক্তিগত অর্থ পরিচালনা করতে পারে না তিনি পারিবারিক বা কর্পোরেটের উচ্চতর স্তরে অর্থ পরিচালনা করতে পারবেন না। আজও, এমন অনেক লোক রয়েছে যারা তাদের অর্থ পরিচালনায় অক্ষম। আর এ কারণেই এমন অনেক লোক আছে যারা আত্মহত্যা করে, ধার শোধ করে না, পলাতক থাকে, চুরির চেষ্টা করে থাকে।

ব্যক্তিগত আর্থিক পরিকল্পনার অনুপস্থিতি কেবল ব্যক্তিকেই প্রভাবিত করে না, পুরো পরিবারকেও প্রভাবিত করে। আমরা অনেক সময় বলে থাকি, অর্থ হলে বাঘের দুধ মেলে, আবার বলি অর্থ অনর্থের মূল। Ashu Dutt (Personal Finance, PP1, Penguin Books), এর মতে, অর্থ সুখ কিনতে পারে না। তবে, এর অভাবে অনেক দুর্দশা পোড়াতে হতে পারে। বুদ্ধিমানদের ক্ষেত্রে বলা হয়ে যে, 'যে লোকেরা পরিকল্পনা করতে ব্যর্থ হয় তার হল সে ব্যর্থতার পরিকল্পনা করা মানুষ'। বেশিরভাগ লোক তাদের ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করে না।

তবে, সুপরিকল্পিত জীবন ফলপ্রসূ হবে। যদি কোনও ব্যক্তি আর্থিক পরিকল্পনা প্রক্রিয়া করে থাকেন এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেন তার আর্থিক লক্ষ্যের দিকে, তখন তাকে আর্থিকভাবে মুক্ত বা আর্থিকভাবে স্বাধীন বলা যেতে পারে। যদি কোনও ব্যক্তি আর্থিকভাবে মুক্ত হয় তবে সে তার উদ্বেগ থেকে মুক্ত। ব্যক্তি মারা গেলেও তার বা তার পরিবারের আর্থিক লক্ষ্যগুলো অর্জন করা যেতে পারে।

জীবন বীমা একমাত্র আর্থিক উপকরণ, যা কোনও ব্যক্তির অনুপস্থিতির পরেও সেই ব্যক্তির বা ব্যক্তির পরিবার বা পরিবারের সদস্যদের প্রয়োজনীয়তা বা লক্ষ অর্জন করতে নিশ্চিয়তা বিধান করে। স্টিফানি আর এর মতে, 'আর্থিক পরিকল্পনার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল সম্ভাব্য ঝুঁকিগুলি চিহ্নিত করা এবং পরিচালনা করা যা একেবারে আর্থিক ক্ষতি করতে পারে'। একটি ভাল আর্থিক পরিকল্পনার বিভিন্ন ঝুঁকি এবং অনিশ্চয়তাগুলো আবরণ করা উচিত যা আর্থিকভাবে বাধা দিতে পারে একজন ব্যক্তির স্বাধীনতায়।

ফ্রাঙ্ক মলিনকা (২০০৩) এর মতে, 'অবশ্যই জীবন বীমা সম্ভবত সবচেয়ে পরিচিত রূপ এবং এখনও পরিবার নির্ভরতা রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সম্ভাব্য আর্থিক সমস্যা থেকে' সুতরাং জীবন বীমা আর্থিক স্বাধীনতা বা স্বাধীনতার সঠিক উপকরণ। আর্থিক লক্ষ্য নির্ধারণ করা, বর্তমান আর্থিক অবস্থা বোঝা, কৌশল ঠিক করা, সেই আর্থিক লক্ষ্যগুলো সম্পাদন করতে অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ এবং কার্যসূচিগুলো চালিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে আর্থিক পরিকল্পনা প্রক্রিয়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য একজন ব্যক্তিকে তার দীর্ঘমেয়াদী প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে পরিষ্কার হতে হবে।

'দীর্ঘমেয়াদী' শব্দটি সাধারণত ১০-১৫ কিংবা ১৫-২০ বছরেরও বেশি সময়কালকে বোঝায়। এই দীর্ঘমেয়াদী প্রয়োজনগুলো প্রয়োজনীয় বিশ্লেষণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নির্ধারণ করা যেতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, কোন একজন ব্যক্তির নতুন গাড়ি, বাড়ি কেনার লক্ষ্য থাকতে পারে। এই বস্তুবাদী লক্ষ্যকে একটি সময়সীমার সাথে আর্থিক আকারে রূপান্তর করতে হবে। এই আর্থিক সংখ্যাগুলো একজন ব্যক্তির দীর্ঘমেয়াদী আর্থিক লক্ষ্য। আর্থিক লক্ষ্যগুলো ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করতে, অবসর গ্রহণের চাহিদা পূরণের জন্য, গাড়ি কেনা, বাড়ি কেনা, শিশুশিক্ষা, বাল্য বিবাহ, কর প্রদানসহ ইত্যাদি হ্রাস করতে সহায়তা করে।

আর্থিক লক্ষ্যে পৌঁছানোর সময়, মুদ্রাস্ফীতি সম্পর্কে সতর্ক হওয়া অপরিহার্য। এখন থেকে ১০-১৫ কিংবা ১৫-২০ বছর ধরে দ্রব্য সামগ্রীর মূল্য অনুমান এবং উপস্থাপনের জন্য মুদ্রাস্ফীতি প্রতি লক্ষ্য রেখে আর্থিক লক্ষ্যটি সমন্বিত করতে হবে। মূল্যস্ফীতি সমন্বিত সংখ্যাগুলি কোন একজন ব্যক্তির আসল আর্থিক লক্ষ্য। ফ্র্যাঙ্ক মালিস্কা (২০০৩) এর মতে, “বীমা জীবন ও আর্থিক পোর্টফোলিওর ঝুঁকি পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে”।

কোনও ব্যক্তির আর্থিক লক্ষ্য, তার বয়স, তার বর্তমান বিনিয়োগ এবং সঞ্চয় এবং উপলব্ধ যে বিভিন্ন পণ্য সম্পর্কিত জ্ঞানের সাথে সম্পর্কিত তা ব্যবহারের উপকরণটি নির্ধারণ করে। ব্যক্তি তার কষ্টার্জিত অর্থ বিনিয়োগের জন্য অনেক সুযোগ খোঁজে এবং অর্থ বিনিয়োগও করে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন আর্থিক উপকরণের সাথে ব্যক্তি কী পরিমাণ ভারসাম্য বজায় রাখতে পারবে এবং বিভিন্ন আর্থিক যন্ত্রপাতি সম্পর্কে ব্যক্তির জ্ঞান খুবই সীমিত। বাজারের পরিবর্তন এবং ব্যক্তির প্রয়োজনের সাথে বিনিয়োগের ধারণগুলো পরিবর্তিত হয়। তবে, দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগগুলি ঘন ঘন পরিবর্তন করা যায় না। সাধারণত এই বিষয়টি বাজার তারল্যের উপর নির্ভর করে।

বর্তমানে লক্ষ্য করা যাচ্ছে লোকেরা বীমাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। কিন্তু দেখা গেছে, ট্যাক্স সাশ্রয়ের জন্য বীমাতে বিনিয়োগের মূল কারণ। বিনিয়োগের অনেকগুলি মাধ্যম থাকলেও বিনিয়োগ হার কম হওয়ায় ব্যক্তি বীমাকেই বিনিয়োগের উপযুক্ত মাধ্যম হিসাবে বেচে নিচ্ছে কারণ ব্যক্তি এখানে মৃত্যু ঝুঁকি, সঞ্চয় ও কর রেয়াতের সুবিধা পাচ্ছে। এছাড়াও বীমাই একমাত্র উপকরণ যা ব্যক্তিকে আর্থিক স্বাধীনতায় নিয়ে যায়। আর এইজন্য বীমা প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যক্তির চাহিদার নিরীখে বাজারে বিভিন্ন বৈচিত্যময় বীমা পণ্য বিক্রি করে।

জীবন বীমা সবার জন্য অতীব প্রয়োজনীয়। যেহেতু জীবনের কোন গ্যারান্টি নেই এবং ভবিষ্যতটি অত্যন্ত অনিশ্চিত তাই জীবন বীমা সবার জন্য অপরিহার্য। কিন্তু ব্যক্তি জীবনের নেতিবাচক দিক সম্পর্কে ভাবতে পছন্দ করেনা, ব্যক্তি আশা করে সবকিছু ইতিবাচক হবে। কোনও আর্থিক পরিকল্পনাই উপযুক্ত দিকনির্দেশনা ছাড়া কার্যকর হতে পারে না।

একটি কার্যকর আর্থিক পরিকল্পনা হল সেটি যা আপনাকে আপনার সম্পদকে জানতে সাহায্য করবে ও তার সাথে পরিচালনা এবং বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে। আর আপনার আর্থিক পরিকল্পনাকে একটি সুসম্পন্ন আর্থিক পরিকল্পনা বলা হবে তখনি যখন আপনি জীবন বীমা পলিসি গ্রহণের মাধ্যমে আপনার উপর নির্ভরশীলদেরকে আর্থিকভাবে সুরক্ষিত করবেন।

(কৃতজ্ঞতায়- ইন্টারনেট থেকে সংগৃহিত বিভিন্ন জার্নাল ও প্রবদ্ধ।)

লেখক: সিনিয়র ম্যানেজার, মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোস্তাফিজুর রহমান টুংকু সম্পাদকীয় কার্যালয়
৫৩ মডার্ন ম্যানসন, মতিঝিল সি/এ, লেভেল # ১১, স্যুট # ৬, ঢাকা-১০০০।
ফোন: ০২ ৯৫১৪৮৭২, ইমেইল: insurancenewsbd@gmail.com